ঢাকা ১০:২৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইসরাইল ও ইউক্রেনের প্রতি সমর্থন যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য ‘গুরুত্বপূর্ণ’: বাইডেন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১০:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩ ১৫৫ বার পড়া হয়েছে
NEWS396 অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ওভাল অফিস থেকে বৃহস্পতিবার রাতে দেয়া এক ভাষণে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য’ ইসরাইল ও ইউক্রেনের যুদ্ধে সফল হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। তিনি ওই দুটি দেশের জন্য কয়েক হাজার কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা চাওয়ার প্রস্তুতির অংশ হিসেবে উভয় দেশে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পৃক্ততা আরো গভীর করার যুক্তি তুলে ধরেন।

বাইডেন বলেন, ‘যদি আন্তর্জাতিক আগ্রাসন অব্যাহত থাকে তাহলে বিশ্বের অন্যান্য অংশে সংঘাত ও বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

বাইডেন বলেন, ‘হামাস ও পুতিন ভিন্ন ধরনের হুমকি। কিন্তু তাদের মধ্যে এই একটি বিষয়ে মিল রয়েছে। তারা উভয়েই প্রতিবেশীর গণতন্ত্রকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করতে চায়।’

যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৭ সালে হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করে। ইসরাইল, মিসর, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাপানও হামাসকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে বিবেচনা করে।

বাইডেন তার ভাষণে আরো বলেন, তিনি কংগ্রেসের কাছে একটি জরুরি তহবিলের অনুরোধ পাঠাবেন যা আগামী বছরের জন্য আনুমানিক ১০ হাজার কোটি ডলার হবে বলে আশা করা হচ্ছে। মানবিক সহায়তা এবং সীমান্ত ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি ইউক্রেন, ইসরাইল, তাইওয়ানের জন্য অর্থের প্রস্তাবটি শুক্রবার উত্থাপন করা হবে।বাইডেন বলেন, ‘আমেরিকার নিরাপত্তার বিবেচনায়, এটি একটি স্মার্ট বিনিয়োগ যার লভ্যাংশ ভোগ করবে আগামী প্রজন্ম।’

বাইডেন আশা করেন যে এ সবগুলো বিষয়কে একটি আইনের আওতায় একত্রিত করে পেশ করলে কংগ্রেসের অনুমোদনের জন্য তা প্রয়োজনীয় রাজনৈতিক জোট তৈরি করবে।

ইসরাইল সফরের এক দিন পরে তিনি এই ভাষণ দিলেন। ওই সফরে তিনি হামাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইসরাইলের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন এবং গাজা উপত্যকায় ফিলিস্তিনিদের জন্য আরো মানবিক সহায়তার ওপর জোর দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের গাজা সফরের পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক তার সমর্থন জানাতে ইসরাইল সফর করেন যখন বৃহস্পতিবার গাজা উপত্যকায় ইসরাইল নতুন করে বিমান হামলা চালায়।

বাইডেন তেল আবিবে সংক্ষিপ্ত সফর থেকে ফিরে বলেছিলেন, তিনি ইসরাইলি নেতাদের সাথে খোলামেলা আলোচনা করেছেন। ৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ১,৪০০ জনের বেশি ইসরাইলি নিহত হবার জবাবে ইসরাইল গাজায় হামলা চালায়। ঐ হামলায় ৩৪০০-এর বেশি মানুষ নিহত হয়।
গাজায় মানবিক সঙ্কট ক্রমেই ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে এবং ইসরাইল ঐ অঞ্চলে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সামগ্রীগুলো পৌঁছাতে বাধা দিচ্ছে।
এ সপ্তাহের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র গাজা ও পশ্চিম তীরের জন্য ১০ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা দেয়।

হোয়াইট হাউজের ওভাল অফিস ভাষণ দেয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ প্ল্যাটফর্মগুলির মধ্যে একটি। একজন প্রেসিডেন্ট সঙ্কটের মুহূর্তে জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রাখার জন্য এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে থাকেন।

বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে এ ধরনের আর মাত্র একটি ভাষণ দিয়েছেন। সেটা ছিল দেশের ঋণ খেলাপি হওয়া এড়াতে কংগ্রেস যখন দ্বিপক্ষীয় বাজেট আইন পাস করে তার পরে।
সূত্র : ভয়েস অব আমেরিকা

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ইসরাইল ও ইউক্রেনের প্রতি সমর্থন যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য ‘গুরুত্বপূর্ণ’: বাইডেন

আপডেট সময় : ১১:১০:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ওভাল অফিস থেকে বৃহস্পতিবার রাতে দেয়া এক ভাষণে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য’ ইসরাইল ও ইউক্রেনের যুদ্ধে সফল হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। তিনি ওই দুটি দেশের জন্য কয়েক হাজার কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা চাওয়ার প্রস্তুতির অংশ হিসেবে উভয় দেশে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পৃক্ততা আরো গভীর করার যুক্তি তুলে ধরেন।

বাইডেন বলেন, ‘যদি আন্তর্জাতিক আগ্রাসন অব্যাহত থাকে তাহলে বিশ্বের অন্যান্য অংশে সংঘাত ও বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

বাইডেন বলেন, ‘হামাস ও পুতিন ভিন্ন ধরনের হুমকি। কিন্তু তাদের মধ্যে এই একটি বিষয়ে মিল রয়েছে। তারা উভয়েই প্রতিবেশীর গণতন্ত্রকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করতে চায়।’

যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৭ সালে হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করে। ইসরাইল, মিসর, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জাপানও হামাসকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে বিবেচনা করে।

বাইডেন তার ভাষণে আরো বলেন, তিনি কংগ্রেসের কাছে একটি জরুরি তহবিলের অনুরোধ পাঠাবেন যা আগামী বছরের জন্য আনুমানিক ১০ হাজার কোটি ডলার হবে বলে আশা করা হচ্ছে। মানবিক সহায়তা এবং সীমান্ত ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি ইউক্রেন, ইসরাইল, তাইওয়ানের জন্য অর্থের প্রস্তাবটি শুক্রবার উত্থাপন করা হবে।বাইডেন বলেন, ‘আমেরিকার নিরাপত্তার বিবেচনায়, এটি একটি স্মার্ট বিনিয়োগ যার লভ্যাংশ ভোগ করবে আগামী প্রজন্ম।’

বাইডেন আশা করেন যে এ সবগুলো বিষয়কে একটি আইনের আওতায় একত্রিত করে পেশ করলে কংগ্রেসের অনুমোদনের জন্য তা প্রয়োজনীয় রাজনৈতিক জোট তৈরি করবে।

ইসরাইল সফরের এক দিন পরে তিনি এই ভাষণ দিলেন। ওই সফরে তিনি হামাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইসরাইলের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন এবং গাজা উপত্যকায় ফিলিস্তিনিদের জন্য আরো মানবিক সহায়তার ওপর জোর দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের গাজা সফরের পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক তার সমর্থন জানাতে ইসরাইল সফর করেন যখন বৃহস্পতিবার গাজা উপত্যকায় ইসরাইল নতুন করে বিমান হামলা চালায়।

বাইডেন তেল আবিবে সংক্ষিপ্ত সফর থেকে ফিরে বলেছিলেন, তিনি ইসরাইলি নেতাদের সাথে খোলামেলা আলোচনা করেছেন। ৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ১,৪০০ জনের বেশি ইসরাইলি নিহত হবার জবাবে ইসরাইল গাজায় হামলা চালায়। ঐ হামলায় ৩৪০০-এর বেশি মানুষ নিহত হয়।
গাজায় মানবিক সঙ্কট ক্রমেই ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে এবং ইসরাইল ঐ অঞ্চলে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সামগ্রীগুলো পৌঁছাতে বাধা দিচ্ছে।
এ সপ্তাহের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র গাজা ও পশ্চিম তীরের জন্য ১০ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা দেয়।

হোয়াইট হাউজের ওভাল অফিস ভাষণ দেয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ প্ল্যাটফর্মগুলির মধ্যে একটি। একজন প্রেসিডেন্ট সঙ্কটের মুহূর্তে জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রাখার জন্য এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে থাকেন।

বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে এ ধরনের আর মাত্র একটি ভাষণ দিয়েছেন। সেটা ছিল দেশের ঋণ খেলাপি হওয়া এড়াতে কংগ্রেস যখন দ্বিপক্ষীয় বাজেট আইন পাস করে তার পরে।
সূত্র : ভয়েস অব আমেরিকা