ঢাকা ০৩:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিনাখরচে যেসব দেশে পড়তে যাওয়া যায়

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৫৯:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২২ অক্টোবর ২০২৩ ১৫১ বার পড়া হয়েছে
NEWS396 অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

অনেক তরুণেরই স্বপ্ন থাকে বিদেশে উচ্চশিক্ষা নেওয়ার। কিন্তু সাধ থাকলেও সাধ্যে কুলায় না। তাই অনেকেই স্বল্প খরচ কিংবা বিনাখরচের দেশ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর খোঁজ করেন। পৃথিবীতে এমন কিছু দেশ, বিশ্ববিদ্যালয় আছে যেখানে বিনাখরচে পড়তে যাওয়া যায়। জানুন খরচ ছাড়াই কোন দেশে পড়তে যেতে পারেন।

বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারটায় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে খরচ। এই কারণে নানা দেশের সরকার কিছু কিছু নিয়ম তৈরি করেছে, যার ফলে বিদেশি শিক্ষার খরচ অনেক কম হয়। এমন অনেক দেশ রয়েছে যেখানে শিক্ষার খরচ এত কম, যে মনে হবে বিখরচায় পড়াশোনা চলছে।

প্রতিবছর আমাদের দেশের জনসংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু এই নতুন প্রজন্মের জন্য সম্পদের যতটা বৃদ্ধি প্রয়োজন, তা হচ্ছে না। ফলে সম্পদ বণ্টন, চাকরি এবং উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থায় নানা রকম পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। সরকার চেষ্টা করছে তাদের ক্ষমতা মতো। কিন্তু তারপরও কিছু শিক্ষার্থী বিদেশে পড়তে যেতে চান।

বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারটায় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে খরচ। এই কারণে নানা দেশের সরকার কিছু কিছু নিয়ম তৈরি করেছে, যার ফলে বিদেশি শিক্ষার খরচ অনেক কম হয়। এমন অনেক দেশ রয়েছে যেখানে শিক্ষার খরচ এত কম, যে মনে হবে নিখরচায় পড়াশোনা চলছে।
এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হল জার্মানি। এখানে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার খরচ শূন্য। এখানে ন্যুনতম অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ফি-এর পরিমাণ ১২ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকা।

একজন শিক্ষার্থী দেশের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যত খরচ করেন তার চেয়েও কম খরচে পড়া যায় জার্মানিতে। কেননা, জার্মানিতে পড়ার জন্য কোনো টিউশন ফি নেই।

শুধু জার্মানি নয়, এমন আরও অনেক দেশ রয়েছে, যেখানেও পড়ার খরচের পরিমাণ খুবই কম। জেনে নেওয়া যাক পৃথিবীর আর কোথায় কোথায় পড়াশোনা করার খরচ প্রায় শূন্য।

প্রথম জায়গাটি হল নরওয়ে। এখানকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিশ্বাস করে উচ্চমানের শিক্ষায়। তারা তাদের দেশের অপর্যাপ্ত সম্পদ ব্যবহার করে দেশের এবং বিদেশের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার জন্য এমন এক পরিবেশ তৈরি করেছে, যা তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতো। কেবল একটাই চাহিদা তাদের, সেটা হল শিক্ষার্থীরা যেন নরওয়ের ভাষা শিখে নেয়। কারণ সে দেশে সমস্ত আন্ডারগ্র্যাজুয়েট কোর্স পড়ানো হয় ওই ভাষায়। ওই দেশে বেঁচে থাকার খরচ আকাশ ছোঁয়া।

দ্বিতীয় দেশ হল পোল্যান্ড। এখানকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো উচ্চশিক্ষার জন্য পোল্যান্ডের ছাত্র-ছাত্রী এবং ইওরোপিয়ান ইউনিয়নই বা ইউরোপিয়ান ইকনোমিক এরিয়ার ছাত্র-ছাত্রীদের অনেক স্কলারশিপ দিয়ে থাকে।

তৃতীয় দেশ হল নেদারল্যান্ড। এই দেশে উচ্চশিক্ষা সম্পূর্ণভাবে বিনামূল্যে নয়। তবে ভর্তুকি দেওয়া হয় অনেকটাই, যাতে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা নানা ধরনের স্কলারশিপ পেতে পারেন।

চতুর্থ দেশটি হল ফিনল্যান্ড। ২০১৭ সালের আগে রাষ্ট্র পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কোনো টিউশন ফি লাগত না। কিন্তু এখন গ্র্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্তরে ইংরেজি পড়তে গেলে প্রতি বছরে দিতে হবে ১৭০০ মার্কিন ডলার। কিন্তু যারা ডক্টরাল লেভেলে পড়াশোনা করতে চান, তারা শূন্য টিউশন ফি দিয়ে পড়তে পারেন। এর বাইরেও সরকার নানা রকমের স্কলারশিপ এবং ফিন্যান্সিয়াল সহায়তা দিয়ে থাকে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

বিনাখরচে যেসব দেশে পড়তে যাওয়া যায়

আপডেট সময় : ১১:৫৯:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২২ অক্টোবর ২০২৩

অনেক তরুণেরই স্বপ্ন থাকে বিদেশে উচ্চশিক্ষা নেওয়ার। কিন্তু সাধ থাকলেও সাধ্যে কুলায় না। তাই অনেকেই স্বল্প খরচ কিংবা বিনাখরচের দেশ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর খোঁজ করেন। পৃথিবীতে এমন কিছু দেশ, বিশ্ববিদ্যালয় আছে যেখানে বিনাখরচে পড়তে যাওয়া যায়। জানুন খরচ ছাড়াই কোন দেশে পড়তে যেতে পারেন।

বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারটায় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে খরচ। এই কারণে নানা দেশের সরকার কিছু কিছু নিয়ম তৈরি করেছে, যার ফলে বিদেশি শিক্ষার খরচ অনেক কম হয়। এমন অনেক দেশ রয়েছে যেখানে শিক্ষার খরচ এত কম, যে মনে হবে বিখরচায় পড়াশোনা চলছে।

প্রতিবছর আমাদের দেশের জনসংখ্যা বাড়ছে। কিন্তু এই নতুন প্রজন্মের জন্য সম্পদের যতটা বৃদ্ধি প্রয়োজন, তা হচ্ছে না। ফলে সম্পদ বণ্টন, চাকরি এবং উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থায় নানা রকম পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। সরকার চেষ্টা করছে তাদের ক্ষমতা মতো। কিন্তু তারপরও কিছু শিক্ষার্থী বিদেশে পড়তে যেতে চান।

বিদেশে উচ্চশিক্ষার ব্যাপারটায় গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে খরচ। এই কারণে নানা দেশের সরকার কিছু কিছু নিয়ম তৈরি করেছে, যার ফলে বিদেশি শিক্ষার খরচ অনেক কম হয়। এমন অনেক দেশ রয়েছে যেখানে শিক্ষার খরচ এত কম, যে মনে হবে নিখরচায় পড়াশোনা চলছে।
এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হল জার্মানি। এখানে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার খরচ শূন্য। এখানে ন্যুনতম অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ফি-এর পরিমাণ ১২ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকা।

একজন শিক্ষার্থী দেশের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যত খরচ করেন তার চেয়েও কম খরচে পড়া যায় জার্মানিতে। কেননা, জার্মানিতে পড়ার জন্য কোনো টিউশন ফি নেই।

শুধু জার্মানি নয়, এমন আরও অনেক দেশ রয়েছে, যেখানেও পড়ার খরচের পরিমাণ খুবই কম। জেনে নেওয়া যাক পৃথিবীর আর কোথায় কোথায় পড়াশোনা করার খরচ প্রায় শূন্য।

প্রথম জায়গাটি হল নরওয়ে। এখানকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিশ্বাস করে উচ্চমানের শিক্ষায়। তারা তাদের দেশের অপর্যাপ্ত সম্পদ ব্যবহার করে দেশের এবং বিদেশের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার জন্য এমন এক পরিবেশ তৈরি করেছে, যা তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতো। কেবল একটাই চাহিদা তাদের, সেটা হল শিক্ষার্থীরা যেন নরওয়ের ভাষা শিখে নেয়। কারণ সে দেশে সমস্ত আন্ডারগ্র্যাজুয়েট কোর্স পড়ানো হয় ওই ভাষায়। ওই দেশে বেঁচে থাকার খরচ আকাশ ছোঁয়া।

দ্বিতীয় দেশ হল পোল্যান্ড। এখানকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো উচ্চশিক্ষার জন্য পোল্যান্ডের ছাত্র-ছাত্রী এবং ইওরোপিয়ান ইউনিয়নই বা ইউরোপিয়ান ইকনোমিক এরিয়ার ছাত্র-ছাত্রীদের অনেক স্কলারশিপ দিয়ে থাকে।

তৃতীয় দেশ হল নেদারল্যান্ড। এই দেশে উচ্চশিক্ষা সম্পূর্ণভাবে বিনামূল্যে নয়। তবে ভর্তুকি দেওয়া হয় অনেকটাই, যাতে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা নানা ধরনের স্কলারশিপ পেতে পারেন।

চতুর্থ দেশটি হল ফিনল্যান্ড। ২০১৭ সালের আগে রাষ্ট্র পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কোনো টিউশন ফি লাগত না। কিন্তু এখন গ্র্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্তরে ইংরেজি পড়তে গেলে প্রতি বছরে দিতে হবে ১৭০০ মার্কিন ডলার। কিন্তু যারা ডক্টরাল লেভেলে পড়াশোনা করতে চান, তারা শূন্য টিউশন ফি দিয়ে পড়তে পারেন। এর বাইরেও সরকার নানা রকমের স্কলারশিপ এবং ফিন্যান্সিয়াল সহায়তা দিয়ে থাকে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের।