ঢাকা ০৪:২৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কাস্টমস কর্মকর্তাসহ তিনজনকে পিটিয়ে পণ্য নিয়ে গেল লাগেজ পার্টি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৪৬:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪ ৮০ বার পড়া হয়েছে
NEWS396 অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দরের কাস্টমস কর্মকর্তাসহ তিনজনকে পিটিয়ে অবৈধ পণ্য নিয়ে গেছে ‘লাগেজ পার্টি’। গতকাল শুক্রবার এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মো. কামরুল পারভেজ আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিত্সা নিয়েছেন। বাকি দুই আহত ব্যক্তি হলেন কাস্টমসের সিপাহি মো. জুম্মন ও মো. ইমন মিয়া।

তাঁরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছিল।স্থানীয় লোকজন ও আহতদের সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সোয়া ৩টার দিকে ভারতফেরত কয়েক ব্যক্তি সাত-আটটি ব্যাগে করে মালপত্র নিয়ে আসে। সেগুলো লাগেজ স্ক্যানিংয়ের কক্ষে না নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় উঠিয়ে ফেলে তারা।

এ সময় কাস্টমসের পক্ষ থেকে মালপত্রগুলো স্ক্যানিং কক্ষে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা কাস্টমসের লোকজনের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ায়। এই ফাঁকে মালপত্র নিয়ে অটোরিকশাটি সটকে পড়ে। কাস্টমসের কর্মীরাও পিছু নেন।
বিজিবি ক্যাম্প পার হওয়ার পর অটোরিকশাটি আটক করা হলে চক্রটি কাস্টমসের লোকজনের ওপর চড়াও হয়।আহত মো. কামরুল পারভেজ বলেন, ‘সাত-আটটি ব্যাগে বিপুল পরিমাণ মালপত্র ছিল। স্ক্যানিং করতে রাজি না হয়ে তারা উল্টো ক্ষিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে অটোরিকশা নিয়ে চলে যায়। কিছুদূর যাওয়ার পর আটক করা হলে কবির, আওলাদসহ কয়েকজনের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

কাস্টমস কর্মকর্তাসহ তিনজনকে পিটিয়ে পণ্য নিয়ে গেল লাগেজ পার্টি

আপডেট সময় : ০৭:৪৬:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দরের কাস্টমস কর্মকর্তাসহ তিনজনকে পিটিয়ে অবৈধ পণ্য নিয়ে গেছে ‘লাগেজ পার্টি’। গতকাল শুক্রবার এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মো. কামরুল পারভেজ আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিত্সা নিয়েছেন। বাকি দুই আহত ব্যক্তি হলেন কাস্টমসের সিপাহি মো. জুম্মন ও মো. ইমন মিয়া।

তাঁরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা করার প্রস্তুতি চলছিল।স্থানীয় লোকজন ও আহতদের সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সোয়া ৩টার দিকে ভারতফেরত কয়েক ব্যক্তি সাত-আটটি ব্যাগে করে মালপত্র নিয়ে আসে। সেগুলো লাগেজ স্ক্যানিংয়ের কক্ষে না নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় উঠিয়ে ফেলে তারা।

এ সময় কাস্টমসের পক্ষ থেকে মালপত্রগুলো স্ক্যানিং কক্ষে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা কাস্টমসের লোকজনের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ায়। এই ফাঁকে মালপত্র নিয়ে অটোরিকশাটি সটকে পড়ে। কাস্টমসের কর্মীরাও পিছু নেন।
বিজিবি ক্যাম্প পার হওয়ার পর অটোরিকশাটি আটক করা হলে চক্রটি কাস্টমসের লোকজনের ওপর চড়াও হয়।আহত মো. কামরুল পারভেজ বলেন, ‘সাত-আটটি ব্যাগে বিপুল পরিমাণ মালপত্র ছিল। স্ক্যানিং করতে রাজি না হয়ে তারা উল্টো ক্ষিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে অটোরিকশা নিয়ে চলে যায়। কিছুদূর যাওয়ার পর আটক করা হলে কবির, আওলাদসহ কয়েকজনের নেতৃত্বে আমাদের ওপর হামলা হয়।