ঢাকা ০৭:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাজায় ত্রাণ বিতরণকারী দলের ওপর বিমান হামলা, নিহত ২৭

ডেক্স রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৬:১৭:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪ ৮৮ বার পড়া হয়েছে

আল-জাজিরা থেকে নেওয়া ছবি

NEWS396 অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ফিলিস্তিনের গাজায় ত্রাণ বিতরণকারী দলের ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এছাড়া আরও কয়েকটি হামলার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে ওয়াফা নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, মধ্য গাজার আল নুসিরাত শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি বিমান হামলায় কমপক্ষে ২৭ জন নিহত হয়েছে। খবর আল-জাজিরার।

শরণার্থী শিবিরে একটি তিনতলা আবাসিক ভবনে ইসরায়েলি বাহিনীর বোমা হামলার পর ধ্বংসস্তূপের নিচে থেকে আহতদের উদ্ধার করে দেইর এল-বালাহের আল-আকসা হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে, ইসরায়েলে কানাডার অস্ত্র রপ্তানি নিষিদ্ধ করার পদক্ষেপের নিন্দা করেছেন ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরাইল কাটজ। তিনি বলেছেন, ইতিহাস কানাডার এই পদক্ষেপের কঠোর বিচার করবে।

যুদ্ধবিধ্স্ত গাজায় দুর্ভিক্ষ আসন্ন বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে জাতিসংঘ। বলছে, উত্তর গাজায় ৭০ শতাংশ মানুষ ক্ষুধার সম্মুখীন। এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যের অর্থায়নে জর্ডান হয়ে দুই হাজার টনেরও বেশি খাদ্য সহায়তা পৌঁছেছে গাজায়। যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির মাধ্যমে প্রায় দুই লাখ ৭৫ হাজার মানুষের মধ্যে এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে। খাদ্যের পাশাপাশি তাঁবু এবং কম্বলও ত্রাণ হিসেবে পাঠানো হয়েছে। ইউনিসেফের মাধ্যমে এসব তাঁবু ও কম্বল বিতরণ করা হবে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র সচিব ডেভিড ক্যামেরন এক বিবৃতিতে বলেছেন, আরও সাহায্য পেতে আমাদের সড়কপথে টেকসই মানবিক প্রবেশাধিকার প্রয়োজন। আমরা ইসরায়েলকে আরও ক্রসিং খোলার অনুমতি দিতে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য গাজায় স্বাস্থ্যসেবা, পানি এবং স্যানিটেশন ব্যবস্থা পুনরুদ্ধার করতে চাপ দিয়ে যাচ্ছি।

ফিলিস্তিনের গাজায় গত পাঁচ মাসের বেশি সময় ধরে চলা ইসরায়েলের নির্বিচার হামলায় ১৩ হাজারের বেশি শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির শিশু তহবিল ইউনিসেফ জানিয়েছে, মাত্র এক মাসের ব্যবধানে উত্তর গাজায় মারাত্মক অপুষ্টিতে ভোগা শিশুর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। ক্ষুধা ও অপুষ্টিতে কাতর এই শিশুদের অনেকেরই শরীরে কান্না করার মতো পর্যাপ্ত শক্তিও অবশিষ্ট নেই।

ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য জাতিসংঘের সংস্থা (ইউএনআরডব্লিউএ) জানিয়েছে, গাজার উত্তরাঞ্চলে দুই বছরের কম বয়সী প্রতি তিনজন শিশুর একজন এখন মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে।

টানা পাঁচ মাসেরও বেশি সময় ধরে চালানো ইসরায়েলি আগ্রাসনে কমপক্ষে ৩১ হাজার ৮১৯ ফিলিস্তিনি নিহত এবং ৭৩ হাজার ৯৩৪ জন আহত হয়েছেন। গত ৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ইসরায়েলে নিহত হন এক হাজার ১৩৯ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

গাজায় ত্রাণ বিতরণকারী দলের ওপর বিমান হামলা, নিহত ২৭

আপডেট সময় : ০৬:১৭:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

ফিলিস্তিনের গাজায় ত্রাণ বিতরণকারী দলের ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এছাড়া আরও কয়েকটি হামলার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে ওয়াফা নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, মধ্য গাজার আল নুসিরাত শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি বিমান হামলায় কমপক্ষে ২৭ জন নিহত হয়েছে। খবর আল-জাজিরার।

শরণার্থী শিবিরে একটি তিনতলা আবাসিক ভবনে ইসরায়েলি বাহিনীর বোমা হামলার পর ধ্বংসস্তূপের নিচে থেকে আহতদের উদ্ধার করে দেইর এল-বালাহের আল-আকসা হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে, ইসরায়েলে কানাডার অস্ত্র রপ্তানি নিষিদ্ধ করার পদক্ষেপের নিন্দা করেছেন ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরাইল কাটজ। তিনি বলেছেন, ইতিহাস কানাডার এই পদক্ষেপের কঠোর বিচার করবে।

যুদ্ধবিধ্স্ত গাজায় দুর্ভিক্ষ আসন্ন বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে জাতিসংঘ। বলছে, উত্তর গাজায় ৭০ শতাংশ মানুষ ক্ষুধার সম্মুখীন। এমন পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যের অর্থায়নে জর্ডান হয়ে দুই হাজার টনেরও বেশি খাদ্য সহায়তা পৌঁছেছে গাজায়। যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির মাধ্যমে প্রায় দুই লাখ ৭৫ হাজার মানুষের মধ্যে এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে। খাদ্যের পাশাপাশি তাঁবু এবং কম্বলও ত্রাণ হিসেবে পাঠানো হয়েছে। ইউনিসেফের মাধ্যমে এসব তাঁবু ও কম্বল বিতরণ করা হবে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র সচিব ডেভিড ক্যামেরন এক বিবৃতিতে বলেছেন, আরও সাহায্য পেতে আমাদের সড়কপথে টেকসই মানবিক প্রবেশাধিকার প্রয়োজন। আমরা ইসরায়েলকে আরও ক্রসিং খোলার অনুমতি দিতে এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য গাজায় স্বাস্থ্যসেবা, পানি এবং স্যানিটেশন ব্যবস্থা পুনরুদ্ধার করতে চাপ দিয়ে যাচ্ছি।

ফিলিস্তিনের গাজায় গত পাঁচ মাসের বেশি সময় ধরে চলা ইসরায়েলের নির্বিচার হামলায় ১৩ হাজারের বেশি শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির শিশু তহবিল ইউনিসেফ জানিয়েছে, মাত্র এক মাসের ব্যবধানে উত্তর গাজায় মারাত্মক অপুষ্টিতে ভোগা শিশুর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। ক্ষুধা ও অপুষ্টিতে কাতর এই শিশুদের অনেকেরই শরীরে কান্না করার মতো পর্যাপ্ত শক্তিও অবশিষ্ট নেই।

ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য জাতিসংঘের সংস্থা (ইউএনআরডব্লিউএ) জানিয়েছে, গাজার উত্তরাঞ্চলে দুই বছরের কম বয়সী প্রতি তিনজন শিশুর একজন এখন মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে।

টানা পাঁচ মাসেরও বেশি সময় ধরে চালানো ইসরায়েলি আগ্রাসনে কমপক্ষে ৩১ হাজার ৮১৯ ফিলিস্তিনি নিহত এবং ৭৩ হাজার ৯৩৪ জন আহত হয়েছেন। গত ৭ অক্টোবর হামাসের হামলায় ইসরায়েলে নিহত হন এক হাজার ১৩৯ জন।