ঢাকা ০৯:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বের সেরা ধনীরা কতটা দান করেন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০২৪ ৮০ বার পড়া হয়েছে
NEWS396 অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
ধনকুবেরদের নিয়ে যত আলোচনা হয়, তার অনেকটাজুড়েই থাকে তাঁদের দানের গল্প। কোথায়, কিভাবে, কতটুকু অর্থ দান করলেন তা নিয়ে প্রায়ই তাঁরা সংবাদের শিরোনাম হন। তাঁদের দান করা অর্থের বেশির ভাগই ব্যয় হয় রোগ নিরাময়, শিক্ষা বৃত্তি ও জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিরোধে। দান করায় যাঁরা এগিয়ে রয়েছেন তাঁদের মধ্যে রয়েছেন :
বিল গেটস : দাতা হিসেবে বিল গেটসের বরাবরই নামডাক রয়েছে।

নিজের প্রতিষ্ঠিত দাতব্য সংস্থা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের অধীনে এ পর্যন্ত ৫৯ বিলিয়ন বা পাঁচ হাজার ৯০০ কোটি ডলার দান করেছেন তিনি। এর মধ্যে শুধু ২০২২ সালেই দান করেছেন দুই হাজার কোটি ডলার। গত বছর বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ৮৩০ কোটি ডলার দান করার ঘোষণা দেন বিল গেটস। দারিদ্র্য কমাতে, রোগ নির্মূলে এবং বৈষম্য নিরসনে এই অর্থ ব্যয়ের পরিকল্পনা করা হয়।
 

ওয়ারেন বাফেট : বিনিয়োগ কম্পানি বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন বাফেটের সম্পদের পরিমাণ ১৩৪.৬ বিলিয়ন ডলার বা ১৩ হাজার ৪৬০ কোটি ডলার। ইতিহাসের সবচেয়ে সফল বিনিয়োগকারী তিনি। মোট সম্পদের ৯৯ শতাংশ তিনি দান করে দেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন। এখন পর্যন্ত ‘গেটস ফাউন্ডেশন’ ও ‘কিডস ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে দান করেছেন পাঁচ হাজার ৬০০ কোটি ডলার।

২০১০ সালে বিল গেটসের সঙ্গে তিনি ‘গিভিং প্লেজ’ নামের একটি ক্যাম্পেইন শুরু করেন। এর মাধ্যমে অন্য ধনকুবেরদের মোট সম্পদের অর্ধেক দান করার আহ্বান জানান। 

বার্নার্ড আর্নল্ট : বিশ্বের সেরা ধনীর তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন ফ্রান্সের নাগরিক বার্নার্ড আর্নল্ট। ফ্রেঞ্চ বিলাসবহুল শৌখিন পণ্যের প্রতিষ্ঠান এলভিএমএইচের চেয়ারম্যান তিনি। আর্নল্টের প্রতিষ্ঠান এলভিএমএইচের অধীন ব্র্যান্ডগুলোর সংখ্যা ৭৫।

এর মধ্যে রয়েছে লুই ভুইটন, ক্রিস্টিয়ান ডিওর, মোয়ে অ্যান্ড চ্যান্ডন ও সেফোরার মতো বিখ্যাত ব্র্যান্ড। বার্নার্ড আর্নল্ট ও তাঁর পরিবার গত বছর ১০.৭ মিলিয়ন বা এক কোটি ৭০ লাখ ডলার দান করে। এই অর্থ তাঁরা প্রদান করেন ফ্রেঞ্চ ফুড ব্যাংক ‘রেস্টোস ডু কোউর’-এর কাছে। ফুড ব্যাংকটি ফ্রান্সের খাদ্য সহায়তার ৩৫ শতাংশ সরবরাহ করে থাকে। 

মার্ক জাকারবার্গ : মেটার প্রধান মার্ক জাকারবার্গের সম্পদের পরিমাণ ১৬ হাজার ৯৮০ কোটি ডলার। জাকারবার্গ ও তাঁর স্ত্রী প্রিসিলা চ্যান মিলে প্রতিষ্ঠা করেছেন চ্যান জাকারবার্গ ইনিশিয়েটিভ। আগেভাগে রোগ শনাক্ত করে চিকিৎসা দিতে নিউ ইয়র্কে একটি গবেষণাগার তৈরি করছে এই সংস্থা। কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রকফেলার বিশ্ববিদ্যালয় ও ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা এতে কাজ করবেন। গত বছর এই গবেষণাগার তৈরির জন্য ২৫ কোটি ডলার দান করেছে চ্যান জাকারবার্গ ইনিশিয়েটিভ। এ ছাড়া জীবদ্দশায় সম্পদের ৯৯ শতাংশ দান করার ঘোষণা দিয়েছেন চ্যান জাকারবার্গ দম্পতি।

জেফ বেজস : ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজসের মোট সম্পদের পরিমাণ ১৯২.৮ বিলিয়ন বা ১৯ হাজার ২৮০ কোটি ডলার। এখন পর্যন্ত নিজের সম্পদ থেকে ৩০০ কোটি ডলার দান করেছেন তিনি। গত বছর গৃহহীন মার্কিন নাগরিকদের জন্য ১১৮ মিলিয়ন বা ১১ কোটি আট লাখ ডলার দান করেন বেজস। এর আগে ২০২২ সালে ৪০ কোটি ডলার সমমূল্যের শেয়ার দান করেন এই ধনকুবের। তবে কোন অলাভজনক দাতা সংস্থাকে এই অর্থ দেন তা জানা যায়নি। এ ছাড়া ‘বেজস আর্থ ফান্ড’ সংস্থার মাধ্যমে আফ্রিকায় ২২.৮ মিলিয়ন বা দুই কোটি ২৮ লাখ ডলার দান করেন। বনায়নের জন্য বীজ নিয়ে গবেষণা, ভূমি পরিবর্তন বিষয়ে পর্যবেক্ষণ ও কৃষি গবেষণার কাজে এই অর্থ দান করেন তিনি।

ইলন মাস্ক : টেসলার সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ইলন মাস্কের সম্পদের পরিমাণ এখন ১৮৮.৫ বিলিয়ন ডলার বা ১৮ হাজার ৮৫০ কোটি ডলার। গত বছর দাতব্য প্রতিষ্ঠান দ্য ফাউন্ডেশনকে স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির জন্য ১০ কোটি ডলার দেন মাস্ক। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান টেক্সাসের অস্টিনে প্রতিষ্ঠা করা হবে, যেখানে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল ও গণিত পড়ানো হবে বিনা মূল্যে।

মুকেশ আম্বানি : এশিয়ার শীর্ষ ধনীদের অন্যতম ভারতের রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুকেশ আম্বানি। রিলায়েন্সের অধীনে পেট্রোকেমিক্যাল, তেল ও গ্যাস, খুচরা, টেলিযোগাযোগ ও অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যবসা রয়েছে। শীর্ষ ধনীদের তালিকায় ১০ নম্বরে থাকা এই ধনকুবের গত বছর দান করেন ৩৭৬ কোটি রুপি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

বিশ্বের সেরা ধনীরা কতটা দান করেন

আপডেট সময় : ০৯:০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০২৪
ধনকুবেরদের নিয়ে যত আলোচনা হয়, তার অনেকটাজুড়েই থাকে তাঁদের দানের গল্প। কোথায়, কিভাবে, কতটুকু অর্থ দান করলেন তা নিয়ে প্রায়ই তাঁরা সংবাদের শিরোনাম হন। তাঁদের দান করা অর্থের বেশির ভাগই ব্যয় হয় রোগ নিরাময়, শিক্ষা বৃত্তি ও জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিরোধে। দান করায় যাঁরা এগিয়ে রয়েছেন তাঁদের মধ্যে রয়েছেন :
বিল গেটস : দাতা হিসেবে বিল গেটসের বরাবরই নামডাক রয়েছে।

নিজের প্রতিষ্ঠিত দাতব্য সংস্থা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের অধীনে এ পর্যন্ত ৫৯ বিলিয়ন বা পাঁচ হাজার ৯০০ কোটি ডলার দান করেছেন তিনি। এর মধ্যে শুধু ২০২২ সালেই দান করেছেন দুই হাজার কোটি ডলার। গত বছর বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ৮৩০ কোটি ডলার দান করার ঘোষণা দেন বিল গেটস। দারিদ্র্য কমাতে, রোগ নির্মূলে এবং বৈষম্য নিরসনে এই অর্থ ব্যয়ের পরিকল্পনা করা হয়।
 

ওয়ারেন বাফেট : বিনিয়োগ কম্পানি বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ের প্রধান নির্বাহী ওয়ারেন বাফেটের সম্পদের পরিমাণ ১৩৪.৬ বিলিয়ন ডলার বা ১৩ হাজার ৪৬০ কোটি ডলার। ইতিহাসের সবচেয়ে সফল বিনিয়োগকারী তিনি। মোট সম্পদের ৯৯ শতাংশ তিনি দান করে দেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন। এখন পর্যন্ত ‘গেটস ফাউন্ডেশন’ ও ‘কিডস ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে দান করেছেন পাঁচ হাজার ৬০০ কোটি ডলার।

২০১০ সালে বিল গেটসের সঙ্গে তিনি ‘গিভিং প্লেজ’ নামের একটি ক্যাম্পেইন শুরু করেন। এর মাধ্যমে অন্য ধনকুবেরদের মোট সম্পদের অর্ধেক দান করার আহ্বান জানান। 

বার্নার্ড আর্নল্ট : বিশ্বের সেরা ধনীর তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন ফ্রান্সের নাগরিক বার্নার্ড আর্নল্ট। ফ্রেঞ্চ বিলাসবহুল শৌখিন পণ্যের প্রতিষ্ঠান এলভিএমএইচের চেয়ারম্যান তিনি। আর্নল্টের প্রতিষ্ঠান এলভিএমএইচের অধীন ব্র্যান্ডগুলোর সংখ্যা ৭৫।

এর মধ্যে রয়েছে লুই ভুইটন, ক্রিস্টিয়ান ডিওর, মোয়ে অ্যান্ড চ্যান্ডন ও সেফোরার মতো বিখ্যাত ব্র্যান্ড। বার্নার্ড আর্নল্ট ও তাঁর পরিবার গত বছর ১০.৭ মিলিয়ন বা এক কোটি ৭০ লাখ ডলার দান করে। এই অর্থ তাঁরা প্রদান করেন ফ্রেঞ্চ ফুড ব্যাংক ‘রেস্টোস ডু কোউর’-এর কাছে। ফুড ব্যাংকটি ফ্রান্সের খাদ্য সহায়তার ৩৫ শতাংশ সরবরাহ করে থাকে। 

মার্ক জাকারবার্গ : মেটার প্রধান মার্ক জাকারবার্গের সম্পদের পরিমাণ ১৬ হাজার ৯৮০ কোটি ডলার। জাকারবার্গ ও তাঁর স্ত্রী প্রিসিলা চ্যান মিলে প্রতিষ্ঠা করেছেন চ্যান জাকারবার্গ ইনিশিয়েটিভ। আগেভাগে রোগ শনাক্ত করে চিকিৎসা দিতে নিউ ইয়র্কে একটি গবেষণাগার তৈরি করছে এই সংস্থা। কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রকফেলার বিশ্ববিদ্যালয় ও ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা এতে কাজ করবেন। গত বছর এই গবেষণাগার তৈরির জন্য ২৫ কোটি ডলার দান করেছে চ্যান জাকারবার্গ ইনিশিয়েটিভ। এ ছাড়া জীবদ্দশায় সম্পদের ৯৯ শতাংশ দান করার ঘোষণা দিয়েছেন চ্যান জাকারবার্গ দম্পতি।

জেফ বেজস : ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজসের মোট সম্পদের পরিমাণ ১৯২.৮ বিলিয়ন বা ১৯ হাজার ২৮০ কোটি ডলার। এখন পর্যন্ত নিজের সম্পদ থেকে ৩০০ কোটি ডলার দান করেছেন তিনি। গত বছর গৃহহীন মার্কিন নাগরিকদের জন্য ১১৮ মিলিয়ন বা ১১ কোটি আট লাখ ডলার দান করেন বেজস। এর আগে ২০২২ সালে ৪০ কোটি ডলার সমমূল্যের শেয়ার দান করেন এই ধনকুবের। তবে কোন অলাভজনক দাতা সংস্থাকে এই অর্থ দেন তা জানা যায়নি। এ ছাড়া ‘বেজস আর্থ ফান্ড’ সংস্থার মাধ্যমে আফ্রিকায় ২২.৮ মিলিয়ন বা দুই কোটি ২৮ লাখ ডলার দান করেন। বনায়নের জন্য বীজ নিয়ে গবেষণা, ভূমি পরিবর্তন বিষয়ে পর্যবেক্ষণ ও কৃষি গবেষণার কাজে এই অর্থ দান করেন তিনি।

ইলন মাস্ক : টেসলার সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ইলন মাস্কের সম্পদের পরিমাণ এখন ১৮৮.৫ বিলিয়ন ডলার বা ১৮ হাজার ৮৫০ কোটি ডলার। গত বছর দাতব্য প্রতিষ্ঠান দ্য ফাউন্ডেশনকে স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় তৈরির জন্য ১০ কোটি ডলার দেন মাস্ক। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান টেক্সাসের অস্টিনে প্রতিষ্ঠা করা হবে, যেখানে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল ও গণিত পড়ানো হবে বিনা মূল্যে।

মুকেশ আম্বানি : এশিয়ার শীর্ষ ধনীদের অন্যতম ভারতের রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুকেশ আম্বানি। রিলায়েন্সের অধীনে পেট্রোকেমিক্যাল, তেল ও গ্যাস, খুচরা, টেলিযোগাযোগ ও অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যবসা রয়েছে। শীর্ষ ধনীদের তালিকায় ১০ নম্বরে থাকা এই ধনকুবের গত বছর দান করেন ৩৭৬ কোটি রুপি।